বরিশালে টেক্সটাইলের শিক্ষার্থীদের ৫ দফা দাবিতে মানববন্ধন

বরিশালে টেক্সটাইলের শিক্ষার্থীদের ৫ দফা দাবিতে মানববন্ধন

বরিশালে টেক্সটাইলের শিক্ষার্থীদের ৫ দফা দাবিতে মানববন্ধন : সেশনজট নিরসন ও দ্রুত পরীক্ষা নেওয়াসহ পাঁচ দফা দাবিতে বরিশালের শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের শিক্ষার্থীরা মানববন্ধন ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছেন। আজ বৃহস্পতিবার বরিশালের সিঅ্যান্ডবি সড়কে কলেজের সামনে এই কর্মসূচি পালন করা হয়।

বরিশালের শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের শিক্ষার্থীরা মানববন্ধন ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছেন। বৃহস্পতিবার বরিশালের সিঅ্যান্ডবি সড়কে কলেজের সামনে ছবি: প্রথম আলো
বরিশালের শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের শিক্ষার্থীরা মানববন্ধন ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছেন। বৃহস্পতিবার বরিশালের সিঅ্যান্ডবি সড়কে কলেজের সামনে ছবি: প্রথম আলো

দাবিগুলোর মধ্যে আছে করোনা মহামারি চলাকালে যে সেমিস্টার লস হয়েছে, তা পুষিয়ে নিতে সর্বোচ্চ চার মাসের সেমিস্টার করা, পরীক্ষার ফলাফল সর্বোচ্চ ৬০ দিনের মধ্যে প্রকাশ, পরীক্ষার রুটিন ও অন্যান্য কার্যসূচি দ্রুত প্রকাশ, চতুর্থ বর্ষের সব কার্যক্রম (পরীক্ষা ও কম্প্রিহ্যানসিভ মৌখিক পরীক্ষা) আগস্টের মধ্যে শেষ করা, দ্বিতীয় ও তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীদের জুলাইয়ের মধ্যে পরীক্ষা শেষ করা, সেমিস্টারের ফলাফল প্রকাশিত হওয়ার পরপরই মার্কশিট দেওয়া, প্রতি বিষয়ে মানোন্নয়ন পরীক্ষা ও রিটেক পরীক্ষার ফি অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে ২০০-৩০০ টাকায় নিয়ে আসতে হবে, সব কলেজের অধ্যক্ষসহ একজন করে শিক্ষক প্রতিনিধি নিয়ে একটি স্বতন্ত্র বোর্ড গঠন করা, যাতে পরীক্ষার সময়সূচি, ফল, মার্কশিট ও অন্যান্য বিষয়ে দ্রুত এবং কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া সহজ হয়।

[ বরিশালে টেক্সটাইলের শিক্ষার্থীদের ৫ দফা দাবিতে মানববন্ধন ]

মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা বলেন, তাঁদের কলেজের সাধারণ শিক্ষার্থীসহ বুটেক্সের অধিভুক্ত সাতটি টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের শিক্ষার্থীদের সম্প্রতি করোনা পরিস্থিতির জন্য শিক্ষাজীবন থেকে মূল্যবান একটি বছর হারিয়ে গেছে। আরও একটি বছর শেষ হওয়ার পথে। একাডেমিক বিষয়ে কলেজগুলোর প্রশাসন, বুটেক্স প্রশাসন ও বস্ত্র মন্ত্রণালয়ের সমন্বয়হীনতায় তাঁদের শিক্ষাজীবন দুর্বিষহ হয়ে উঠছে। তাই এসব দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত তাঁরা আন্দোলন অব্যাহত রাখবেন।

শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ, বরিশাল বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয় এর অধিভূক্ত একটি স্নাতক পর্যায়ের সরকারি প্রকৌশল কলেজ। কলেজটি বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের বিভাগীয় শহর বরিশালে অবস্থিত। বাংলাদেশের বস্ত্র সম্পর্কিত শিক্ষার একটি অন্যতম বিদ্যাপীঠ এটি।

১৯৮০ সালে বরিশালের প্রাণকেন্দ্র সি এন্ড বি রোডে জেলা টেক্সটাইল ইন্সটিটিউট নামে প্রতিষ্ঠানটির যাত্রা শুরু হয়। তখন ২ বছর মেয়াদী সার্টিফিকেট ইন টেক্সটাইল কোর্স চালু ছিল। ১৯৯৪ সালে টেক্সটাইল ডিপ্লোমার ব্যাপকতার কথা বিবেচনা করে বস্ত্র দপ্তর প্রতিষ্ঠানটিতে ৩ বছর মেয়াদী ডিপ্লোমা কোর্স চালু করে। তখন প্রতিষ্ঠানটির নাম দেওয়া হয়েছিল ইন্সটিটিউট অব টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টেকনোলজি (ITET)। ১৯৯৬ সালে নামকরণ করা হয় টেক্সটাইল ইন্সটিটিউট, বরিশাল । বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটির নাম শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ, বরিশাল। ২০১০ সালে কলেজটিতে বি.এসসি ইন টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স চালু করে। বাংলাদেশ সরকারের তৎকালীন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১১ কলেজটির শুভ উদ্বোধন করেন।

বরিশালের সি এন্ড বি রোড সংলগ্ন টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টার (টিটিসি) এর বিপরীত দিকে অবস্থিত । এটি ঢাকা-বরিশাল মহাসড়ক নামেও পরিচিত। এটি বরিশাল কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল (নথুল্লাবাদ) থেকে ০.২ কিমি দক্ষিণে, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১ কিমি উত্তরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির অবস্থান।

কলেজ সংলগ্ন মেসে শিক্ষার্থীদের জন্য উন্নতমানের আবাসন ব্যবস্থা আছে। এছাড়াও বর্তমানে কলেজ ক্যাম্পাসে ছাত্র ছাত্রীদের জন্য পৃথক হোস্টেল নির্মান করা হয়েছে। ইতিমধ্যে বি এস সি ইন টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং এর ছাত্র এবং ছাত্রীদের হোস্টেলে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। ক্যাম্পাসে সকল উন্নয়নমূলক কাজ দ্রুত চলছে।

বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে এই কলেজটিতে যেসব বিষয়ে চার বছর মেয়াদী বিএসসি ইন টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স চালু রয়েছেঃ-

  • ইয়ার্ন ইঞ্জিনিয়ারিং
  • ফেব্রিক ইঞ্জিনিয়ারিং
  • ওয়েট প্রসেস ইঞ্জিনিয়ারিং
  • অ্যাপারেল ইঞ্জিনিয়ারিং
  • ফ্যাশন ডিজাইন এন্ড টেকনোলজি (প্রক্রিয়াধীন)

ডিপ্লোমা কোর্সে মাধ্যমিক পরীক্ষার ফলাফল অনুযায়ী এবং বিএসসি ইন টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং এ এসএসসি এবং এইচএসসি এর ফলাফলের ভিত্তিতে ছাত্র ছাত্রী ভর্তির আবেদন করতে হয়। সরকারী বিধি মোতাবেক অনলাইনে শুধুমাত্র টেলিটক মোবাইলে এসএমএসের মাধ্যমে ভর্তির আবেদন করতে পারে। ভর্তির ফলাফল প্রার্থীর ব্যবহৃত নম্বরে (মনোনীতদের) এসএমএসের মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হয। উল্লেখ্য, ডিপ্লোমা কোর্সে শুধুমাত্র জিপিএ এবং বিএসসি তে জিপিএ এর পাশাপাশি লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হয়।

আরও দেখুন:

সরকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করতে চায় না : শিক্ষামন্ত্রী

You May Also Like

About the Author: admin

One Comment to “বরিশালে টেক্সটাইলের শিক্ষার্থীদের ৫ দফা দাবিতে মানববন্ধন”

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।